বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪ ইং
  • প্রচ্ছদ

  • বাংলাদেশ

  • রাজনীতি

  • বিশ্ব

  • বাণিজ্য

  • মতামত

  • খেলা

  • বিনোদন

  • চাকরি

  • জীবনযাপন

  • শিক্ষা

  • প্রযুক্তি

  • গ্যাজেটস

  • সড়ক দুর্ঘটনা

  • ধর্ম

  • আইন আদালত

  • জাতীয়

  • নারী

  • সশস্ত্র বাহিনী

  • গণমাধ্যম

  • কৃষি

  • সাহিত্য পাতা

  • মুক্তিযুদ্ধ

  • আইন শৃঙ্খলা

  • আইন শৃঙ্খলা

  • বাংলাদেশ

    পুলিশ কনস্টেবল হত্যা : বিএনপি নেতা রিজভী-সোহেলের বিচার শুরু

    নিউজ ডেস্ক থেকে
    প্রকাশ: ৩১ অগাস্ট ২০২৩ ইং
          185
    ছবি: আদালত চত্ত্বর
      Print News

    নিউজ ডেস্কঃ 

     


    পুলিশ কনস্টেবল শামীম হত্যা মামলায় বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব এডভোকেট রুহুল কবির রিজভী ও যুগ্ম মহাসচিব হাবিবুন নবী খান সোহেলসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেছেন আদালত। অভিযোগ গঠনের ফলে এ মামলার আনুষ্ঠানিক বিচার শুরু হলো।

    আজ বৃহস্পতিবার ৩১ আগস্ট ঢাকার অতিরিক্ত চতুর্থ মহানগর দায়রা জজ আদালতের ভারপ্রাপ্ত বিচারক বিলকিস আক্তার আসামিদের অব্যাহতির আবেদন খারিজ করে এ অভিযোগ গঠন করেন।

    এ মামলার আইনজীবী সৈয়দ জয়নুল আবেদীন মেজবাহ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

    অপর আসামিরা হলেন, বিএনপির কর্মী আব্দুস সাত্তার, শাহ আলম, আনোয়ার হোসেন টিপু, আলফাজ ওরফে এলাইস আব্বাস ও রফিক।

    ২০১৫ সালের ১৭ জানুয়ারি রাজধানীর রমনা এলাকায় বিএনপি ও  জামায়াত শিবিরের নেতাকর্মীরা লাঠি সোটা ককটেল বোমাসহ মিছিল বের করে। এ সময় পুলিশ বহনকারী একটি বাসে বোমা বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। এতে পুলিশ কনস্টেবল শামীম মারা যান। এ ঘটনায় ১৮ জানুয়ারি উপপরিদর্শক শফিকুল ইসলাম বাদি হয়ে রাজধানীর রমনা মডেল থানায় এ মামলা করেন। তদন্ত শেষে ২০১৬ সালের ১৪ জুলাই সিআইডির পুলিশ পরিদর্শক মো. আলী আক্কাছ আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন।

    চার্জশিটে বলা হয়েছে, আসামি আনোয়ার হোসেন টিপু ঢাকা কলেজ ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ছিলেন। তিনি নিউমার্কেট থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এবং আসামি মোহাম্মদ হোসেন নিউমার্কেট থানার ১৮ ওয়ার্ডের সভাপতি এবং আসামি সাত্তার নিউমার্কেট থানা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক হওয়ার জন্য ২০ দলীয় জোটের অবরোধ চলাকালে আন্দোলন বেগবান করার উদ্দেশ্যে এবং দলের হাই কমান্ডের কাছে নিজের অবস্থান সুসংহত করতে বিভিন্ন ধরণের নাশকতার পরিকল্পনা করে। তারই ধারাবাহিকতায় তাদের কর্মসূচির মধ্যে তারা নাশকতা সৃষ্টি করে পুলিশের মনোবল ভেঙে দেয়ার জন্য পুলিশের উপর আক্রমণ করে এবং গাড়ি পোড়ানোসহ বিভিন্ন ধরনের সহিংসতা শুরু করে। যার ফলে ২০১৫ সালের ১৭ জানুয়ারি আসামি হোসেন, সাত্তার, রফিক ও আলফাজ চারজন শাহবাগে একত্রিত হয়। সেখানে চা পান করে তারা শিশু পার্কের দিকে হাঁটতে থাকে। পার্কের সামনে কিছুক্ষণ দাঁড়ানোর পর আসামি হোসেন ও সাত্তার ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউটের দিকে হাঁটতে থাকে। তাদের দেখে আসামি রফিক ও আলফাজ একই দিকে হাঁটতে থাকে। রমনা পার্কের রমনা চাইনিজ রেস্টুরেন্টে বসে পরিকল্পনা করে সাত্তার সেখানে টিপুকে আসতে বলেন। আলোচনার সময় টিপু ও শাহ আলম মোটরসাইকেলে সেখানে আসেন। তখন শপিং ব্যাগ নিয়ে টিপু বসে ছিল এবং শাহ আলম মোটরসাইকেল চালাচ্ছিল। আসামিরা মোটরসাইকেল থেকে নেমে তাদের চারজনের সঙ্গে কথা বলার ৫ থেকে ১০ মিনিট পর খিলগাঁও থানা ছাত্রদলের নুরুজ্জামান জনি সেখানে আসে। তারপর আলফাজ ও শাহ আলমকে বাইরে রেখে অপর পাঁচজন আলোচনা করে। গাড়ি পোড়ানো ও বিস্ফোরণে কাজের ব্যয়ের জন্য আসামি হোসেনকে অর্থ সরবরাহ করতে বললে সে রাজি হয়। আলোচনার পর আসামি টিপু ব্যাগ থেকে বোমা বের করে রফিকের কাছে দেয়। পরবর্তীতে পুলিশের গাড়ি আসলে আসামি সাত্তার সংকেত দেয়। আসামি টিপু, নুরুজ্জামান ও রফিককে সিগনাল দিলে প্রথম টিপু পরপর দুটি পেট্রোল বোমা পুলিশের গাড়ির সামনের গেটের ভিতরে এবং রফিক ৩ থেকে ৪টি ককটেল বোমা গাড়িতে মারে। এরপর তারা পালিয়ে যায়। এতে কনস্টেবল শামীম নিহত হন।

    সূত্র-বাসস 

    আপনার মন্তব্য লিখুন
    Total Visitors : 566592

    সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ শাহিদ আজিজ

            ৪৪৮ বাউনিয়া,তুরাগ,ওয়ার্ড নং ৫২

            ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন ঢাকা থেকে প্রচারিত এবং প্রকাশিত।

            যোগাযোগ -০১৭৯৫২৫২১৪২

            ইমেইল -shahidazizmoonna@gmail.com